Gmail! | Yahoo! | Facbook | Bangla Font
শিরোনাম
প্রচ্ছদ / ছবি ঘর / “মানবাধিকার কর্মীদের গ্রেফতারে নাগরিক সমাজ শংকিত” : ফাহিমা নাসরীন মুন্নি
“মানবাধিকার কর্মীদের গ্রেফতারে নাগরিক সমাজ শংকিত” : ফাহিমা নাসরীন মুন্নি

“মানবাধিকার কর্মীদের গ্রেফতারে নাগরিক সমাজ শংকিত” : ফাহিমা নাসরীন মুন্নি

নিজস্ব প্রতিবেদক,সবুজবাংলা২৪ডটকম (ঢাকা) : বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী ও বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট ফাহিমা নাসরিন মুন্নী বলেন, দেশে মানবাধিকার, আইনের শাসন নেই বলে সারা দেশে নির্বিচারে গণগ্রেফতার ও গুম খুন বেড়ে গেছে। যে দেশের প্রধান বিচারপতি তার অধিকার রাখতে পারে না সেখানে, সাধারণ মানুষ কোথায় যাবে? আমরা এমন দেশে বসবাস করি যে দেশের প্রধান বিচারপতিকে সরকার তাদের স্বার্থে অসুস্থ্য বানিয়ে দেশের বাহিরে পাঠিয়ে দেয়। এখনে কেউ কোন কথা বলতে পারে না। মতের স্বাধীনতা নেই, রাজনীতির স্বাধীনতা নেই। বিরোধী দলের রাজনীতি করলেই হামলা মামলা, গুম খুনের স্বীকার হতে হয়। তিনি মানবাধিকার কর্মী মোহাম্মদ উল্ল্যাহ রকি-কে নির্শত মুক্তির দাবী করেন।

হামদুল্লাহ আল মেহেদী বলেন, ক’দিন আগে আমার আর এক সহযাত্রী কল্যাণ পার্টির মহাসচিব এম এম আমিনুর রহমানকে গুম করেছে। দিন যায় মাস যায় এখনো সে ফিরে আসেনি। আমাদের দলের চেয়ারম্যান চট্টগ্রামে প্রতিনিধি সভা করার অপরাধে গ্রেফতার হয়েছিল। আসলে কোন পথে বাংলাদেশ আজ আমারও প্রশ্ন?

জাতীয় মানবাধিকার সমিতির মহাসচিব মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা বলেন, গত ১০ অক্টোবর জিহাদ দিবসে দৈনিক বাংলারমোড়ে তার স্মৃতি স্তম্ভে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে ১৬ ঘন্টা মতিঝিল থানায় হাজতে ছিলাম। অপরাধ স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে কথা বলা, এদেশে সাধারণ মানুষের কোন নিরাপত্তা নেই। রকি’র অপরাধ সে মানবাধিকারের পক্ষে কথা বলে, সেই অপরাধে সে এখন ফেনী কারাগারে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তিনি তার  অবিলম্বে নির্শত মুক্তির দাবী করেন।

জাতীয় মানবাধিকার আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে আজ ১৮ আগষ্ট ২০১৭ইং, বুধবার, সকাল ১০ ঘটিকায়  জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয় মানবাধিকার আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, ফেণী জেলার সদস্য সচিব ও মানবাধিকার কর্মী মোহাম্মদ উল্ল্যাহ রকি-কে বিনা অপরাধে গ্রেফতারের প্রতিবাদে এবং দ্রুত নি:শর্ত মুক্তির দাবীতে “মানবাধিকার কর্মীদের গ্রেফতারে শংকিত নাগরিক সমাজ : কোন পথে বাংলাদেশ?” শীর্ষক এক নাগরিক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

সভাপতি মুহাম্মদ মাহমুদুল হাসান তার সমাপনি বক্তব্যে বলেন, মানবাধিকার আজ ভুলন্ঠিত, মানবাধিকার কর্মীরাও আজ কথা বলতে পারে না। আমরা সরকারকে ক্ষমতায় বসানো কিংবা ক্ষমতাচ্যূত করার জন্য আন্দোলন করি না। আন্দোলন করি মানবতার জন্য, সেই জন্যই রোহিঙ্গাদের পাশে ছুটে গিয়েছিলাম। তিনি হুশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন  আগামী ৭ দিনের মধ্যেফেণী জেলার সদস্য সচিব ও মানবাধিকার কর্মী মোহাম্মদ উল্ল্যাহ রকি- কে নিঃর্শত মুক্তি না দিলে কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

মানববন্ধনে জাতীয় মানবাধিকার আন্দোলন-এর প্রতিষ্ঠাতা ও আহবায়ক মুহাম্মদ মাহমুদুল হাসান-এর সভাপতিত্বে বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী ও বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট ফাহিমা নাসরিন মুন্নী,  লেবার পার্টির মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদী, বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈসা, লেবার পার্টির যুগ্ম মহাসচিব মাহমুদ খান,  ইস্টার্ণ পয়েন্ট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এস.এম তানভীর রানা, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে.এম রাকিবুল ইসলাম রিপন,  বিশিষ্ট মানবাধিকার সংগঠক ও সাংবাদিক মাসুদ রানা, আদর্শ নাগরিক আন্দোলনের সহ-সভাপতি লিয়াকত আলী, সহ-সাধারণ সম্পাদক মুফতি শফিকুল ইসলাম সুজন, জাতীয় মানবাধিকার আন্দোলন-এর যুগ্ম-আহবায়ক মূফতি খোরশেদ আলম, সদস্য সচিব খন্দকার মহিউদ্দিন মাহি,  সহ-সদস্য সচিব খলিলুর রহমান, আমির হোসেন আমু প্রমূখ।

সবুজবাংলা২৪ডটকম/ঢাকা / ১৮ অক্টোবর ২০১৭ /বুধবার/ ১৩:০৫

মন্তব্য

Scroll To Top
Copy Protected by Chetans WP-Copyprotect.