Gmail! | Yahoo! | Facbook | Bangla Font
প্রচ্ছদ / জাতীয় / তাপদাহ ও লোডশেডিংয়ে জনজীবন বিপর্যস্ত
তাপদাহ ও লোডশেডিংয়ে জনজীবন বিপর্যস্ত

তাপদাহ ও লোডশেডিংয়ে জনজীবন বিপর্যস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, সবুজবাংলা২৪ডটকম (ঢাকা) : একদিকে, জ্যৈষ্ঠের তাপদাহ, অন্যদিকে লোডশেডিংয়ের কারণে জনজীবন বিপর্যস্ত৷ গরমে অতিষ্ঠ মানুষ৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম মঙ্গলবার থেকে গরম নিয়ে সরগরম৷

এই সপ্তাহে বাংলাদেশে গরম কমার সম্ভাবনা নেই উল্লেখ করে বিদ্যুৎ কর্মকর্তারাও জানিয়েছেন, রক্ষণাবেক্ষণসহ বিভিন্ন কারণে বন্ধ অন্তত ১০টি বিদ্যুৎকেন্দ্রের পরিস্থিতির উন্নতিতে আরো তিন-চার দিন লাগবে৷

কয়েকদিন ধরেই তাপপ্রবাহ চলছে দেশজুড়ে৷ সোমবার ঢাকায় ৩৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়, সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে ৩৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস৷ গরমের কারণে বিদ্যুতের চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে প্রায় তিন হাজার মেগাওয়াট ঘাটতি দেখা দিয়েছে৷ ফলে দেশ এই তিন হাজার মেগাওয়াট লোডশেডিংয়ের কবলে পড়েছে৷ গ্রামাঞ্চল ও মফস্বল শহরে লোডশেডিং হচ্ছে প্রায় ১০ ঘণ্টা করে৷ ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, খুলনা, রাজশাহীর মতো বড় বড় শহর-নগরেও লোডশেডিং হচ্ছে দফায় দফায়৷ কোথাও কোথাও রয়েছে লো-ভোল্টেজের সমস্যা৷

ফেসবুক ও টুইটারে অনেকেই নিজ নিজ এলাকার অবস্থা তুলে ধরেছেন৷ কেউ কেউ মজা করতেও ভোলেননি৷

সিরাজুল ইসলাম ফেসবুকে লিখেছেন, ‘‘তীব্র তাপদাহ চলছে, বিদ্যুৎ নেই, তবুও অফিসে ঠাণ্ডা জায়গায় আছি৷ কিন্তু কষ্ট হচ্ছে ঐ সব মেহনতি মানুষের জন্য, যারা জীবন জীবিকার জন্য এই তীব্র গরমের মাঝেও মাঠে-ঘাটে-রাস্তায় নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে৷”

মামুন মিরাজুল ফেনীর অবস্থা সম্পর্কে জানাতে গিয়ে লিখেছেন, ‘‘ফেনীতে একদিকে চলছে ভয়াবহ তাপদাহ অন্যদিকে চলছে ভয়াবহ লোডশেডিং৷ সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৬-৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, পল্লী বিদ্যুতের এই ভয়াবহ লোডশেডিংয়ের কারণে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে৷”

অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ এই গরমের কারণ বর্ণনা করতে গিয়ে লিখেছেন, “জ্যৈষ্ঠ মাসে কাঁঠালপাকা গরমই আসার কথা৷ কিন্তু আমরা এখন যে গরম পার করছি, তা কাঁঠালপাকা না, মানুষপাকা গরম৷ প্রকৃতি ঢাকা মহানগরীতে নদী-নালা, খাল-বিল গাছপালা আর আলোবাতাসের যে সুযোগ রেখেছিল তাতে এই অসহ্য গরম পড়ার কথা না৷ কিন্তু আবর্জনার ভাগাড় বুড়িগঙ্গার সাধ্য নেই আমাদের গরম কিছু কমায়, বালু তুরাগও শেষের পথে৷ লোভী ও বেকুব কর্তারা ফলের গাছ উজাড় করে লাগাচ্ছে বনসাই বা প্লাস্টিক গাছ, উন্মুক্ত স্থান ভরাট করে তুলছে দালান৷ স্বচ্ছল মানুষেরা ব্যক্তিগত সমাধান হিসেবে নিজেদের বাক্সবন্দি করছেন৷ কখনো গরমের ঠেলায়, কখনো স্ট্যাটাসের জন্য বাড়ি বাড়ি এসি, গাড়িতে এসি, মার্কেট অফিসে এসি৷ শহর আরো গরম হচ্ছে৷”

সাইফুল ইসলাম অবশ্য লিখেছেন, “সরকার লোডশেডিং দিয়ে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের গুরুত্ব বোঝাচ্ছে৷”

আমিনুর রশীদ লিখেছেন, “মরার উপর খাড়ার ঘা – একে তো গরমে প্রাণ ওষ্ঠাগত, তার উপর আবার ৩০০০ মেগাওয়াট লোডশেডিং৷”

বিএফ সুমন লিখেছেন, “এটা কেমন উন্নয়নশীল দেশ, দিনের মধ্যে ১৩ বার লোডশেডিং?”

শামীম আরেফীন বাবুল লিখেছেন, “পৃথিবীর ইতিহাসে ফরিদপুর জেলায় লোডশেডিংয়ে প্রথম স্থান অধিকার করবে বলে আমরা আশাবাদী৷”

নাবিলা আহমেদ সবাইকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে লিখেছেন, “সবাই একটু সচেতন থাকুন, মে মাসের ২২ থেকে ২৮ তারিখ পর্যন্ত৷ যতটা সম্ভব বেশি করে পানি পান করুন এবং সূর্যের আলো থেকে দূরে থাকুন, কারণ, এই তাপদাহে হিট স্ট্রোক হওয়ার সম্ভাবনা বেশি৷”

-ডিডব্লিউ
সবুজবাংলা২৪ডটকম/ পিরোজপুর/ ২৪ মে ২০১৭ /বুধবার/ ১৯:৫৫

মন্তব্য

Scroll To Top
Copy Protected by Chetans WP-Copyprotect.