Gmail! | Yahoo! | Facbook | Bangla Font
শিরোনাম
প্রচ্ছদ / প্রচ্ছদ / ফেসবুক মৃতকে জীবিত করে !
ফেসবুক মৃতকে জীবিত করে !

ফেসবুক মৃতকে জীবিত করে !

Artical-Mehbubur Rahman pic Mobaidur-Rahmanমোবায়েদুর রহমান : এমন শিরোনাম কেন দিলাম? আমাকে কেউ ভুল বুঝবেন না।ধর্মীয় অর্থে আমি এই কথাটি বলিনি। রূপক অর্থে বলেছি। যাই হোক কেন এই শিরোনাম দিলাম সেটি আপনাদের সাথে শেয়ার করছি। ফেসবুকে আমার বিচরণ সাড়ে ৫ বছর। ৫ বছর আগে একজনের ফ্রেন্ড রিকুয়েষ্ট পাই। সে আমার স্নেহাষ্পদ। তার পিতা নাট্য জগতে একজন নামজাদা লোক ছিলেন। আমার সাথে তার ব্যক্তিগত ঘনিষ্ঠতা ছিল। তার মাতা একজন সুপরিচিত অভিনেত্রী ছিলেন। তাদের একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তান ছিল। তাদের সেই আত্মজা আমার এফবি ফ্রেন্ড হবে, সে তো আনন্দের ব্যাপার। তাকে দেখেছি শৈশবাবস্থায়। এখন সে অধ্যাপিকা, নাট্য পরিচালক এবং ছেলে মেয়ের গর্বিত মাতা। আমরা ভার্চুয়াল জগতে বন্ধু হলাম। সে লিখল, প্রায় ৪০ বছর পর আমার ছবি সে দেখল ফেসবুকের পাতায়। বিস্মৃতির অতলান্ত থেকে আমি উঠে এসেছি ফেসবুকের পাতায়। ৪০ বছর পর ফেসবুকে আমার কথা শুনে আমার কাছে সে তার অনুভুতি ব্যক্ত করেছিল এই বলে যে, ফেসবুক মৃতকে জীবিত করে।

গতকাল শনিবার একটি ঘটনা ঘটেছে। আজ থেকে প্রায় ১৭ বছর আগে একটি ছেলে ভাগ্যান্বষণে ইটালি যায়। তারপর আমাদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। আমি তাকে প্রায় ভুলেই গিয়েছিলাম। ফেসবুকে আমার পদচারণা দেখে দীর্ঘ ১৭ বছর পর আজ সে আমাকে সুদূর তুরষ্ক থেকে লিখেছে যে আমি যেন সিরিয়ার ওপর কিছু লিখি। তারপর সে তার পরিচয় দেয় এবং ১৭ বছর আগে আমার সাথে তার যে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল সেটি স্মরণ করিয়ে দেয়। সে আরও জানায় যে, ভাগ্যান্বেষণে সে প্রথমে ইটালি যায়। তারপর জীবন সমুদ্রে ভাসতে ভাসতে প্রথমে জার্মানি, পরে মালয়েশিয়া এবং তারপর আমেরিকার নিউ ইয়র্ক। এখানে এসে সে প্রায় নিঃস্ব হয়ে পড়ে। এমন সময় ওর এক বাল্য বন্ধু ওকে তুরষ্ক আসার আমন্ত্রণ জানায়। দেড় বছর হলো সে তুরষ্কে আছে। জীবন যুদ্ধে আজ সে বিজয়ী। তাই এখন আমাকে সে স্মরণ করেছে।

ওর এই লেখা পড়ে আমার মনে পড়ল, সাড়ে ৫ বছর আগে সেদিনের কিশোরী, আজকের অধ্যাপিকার সেই লেখাটি, ফেসবুক মৃতকে জীবিত করে। এটি যেন আমার স্তম্ভিত চেতনার ওপর এক বিদ্যুৎ প্রহার। এবং সেই সাথে সাড়ে ৫ বছর পর আমার স্মৃতির প্রকোষ্ঠে জমে থাকা ধুলি বালি ঝেড়ে ফেললাম। জাগ্রত হলো মরা অতীত। স্মৃতির সায়রে এখন আমার সামনে ভাসছে ঐ দুটি মুখ। একটি তুরষ্কের ব্যবসায়ী। আরেকটি ঢাকার অধ্যাপিকা।এই দুটি মুখের পুনর্জাগরনের সবটুকু কৃতিত্ব ওদের। আমার কোনো অবদান নাই।

সত্যিই ফেসবুক মৃতকে জীবিত করে।

লেখক-সাংবাদিক ও কলামিষ্ট

মন্তব্য

Scroll To Top
Copy Protected by Chetans WP-Copyprotect.