Gmail! | Yahoo! | Facbook | Bangla Font
শিরোনাম
প্রচ্ছদ / নারী / নারীর ফ্যাশনে হেজাব
নারীর ফ্যাশনে হেজাব

নারীর ফ্যাশনে হেজাব

শাহনাজ বেগম : ইসলামে নারীর পর্দা করার বিধান রয়েছে। মুসলমান নারীর পর্দা করার বিধান ইসলামসম্মত। ছোটবেলা থেকেই মা-খালা বা মুরব্বিদের বোরকা ব্যবহার করতে দেখেছি। কালো রঙয়ের ঢিলেঢালা বোরকা। মাথার উপরের অন্য একটা অংশের মুখের উপর দুটি পাতলা নেটের পর্দা দিয়ে ঢাকা থাকত। প্রয়োজনে একটা নেট মাথার উপরে তুলে রাখত বা দুটোই ব্যবহার করত। সে ধরনের বোরকা এখন খুব কম দেখা যায়। এখন বোরকার সাথে বা যে কোন পোশাকের ওপর হেজাবের ব্যবহার বেড়েছে।

বাংলাদেশে এখন যত্রতত্র হেজাবের ব্যবহার চোখে পড়ার মত। বিরাট একটা অংশ সে ছোট কিংবা বড় অনেকেরই হেজাবে আবৃত দেখা যাচ্ছে। বয়স্ক মহিলারা যতটা ব্যবহার করছে তার চেয়ে বেশি দেখা যাচ্ছে স্কুল-কলেজের তরুণীদের মধ্যে। সালোয়ার-কামিজ বা শাড়ি সব পোশাকের উপরেই এটা বেশ মানানসই। হেজাবকে ফ্যাশনের একটা অংশ বললেও ভুল হবে না। কৌতূহল বা আগ্রহ কিংবা পর্দার প্রয়োজনেই হোক হেজাবের চলটা লুফে নিয়েছে এদেশের নারীদের বড় একটা অংশ। একজনের দেখে অন্যজন বন্ধুকে দেখে অন্য বন্ধুরা আকৃষ্ট হচ্ছে এভাবে হেজাবের ব্যবহার দিনে দিনে অনেক বেড়েছে। পথে, বাজারে, বাসে যেখানেই নারীদের জটলা সবখানেই অন্তত অর্ধেক বা কোন কোন জায়গায় অর্ধেকের বেশী নারীকে হেজাব আচ্ছাদনে দেখা আয়। ঢাকা শহরে চলাচলকারী বাসে ৯টা মহিলা আসনের ৫ জনই দেখা যায় হেজাব পরা অবস্থায়। যে কোন বিয়ে বা জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে পোশাকের সাথে হেজাবের কালার কম্বিনেশন করে নারীদের উপস্থিতি অসাধারণ লাগে।

সউদী আরব, ইরান, মিসর, পাকিস্তান, মালয়েশীয়াসহ মুসলিম দেশগুলোতে হেজাবের ব্যবহারে কড়াকড়ি আইন থাকলেও আমাদের দেশে অতটা আবশ্যকীয় না হলেও নারীদের ক্ষেত্রে বেশ অনেকটায় প্রভাব পড়ছে বলে মনে হচ্ছে। তবে কালারফুল হেজাবের সাথে মুখোম-ল আবৃত আর সেই সাথে একটু সাজগোজ চেহারা কিশোরীদের দেখতেও বেশ পরিপাটি লাগে অন্যদিকে তরুণীরা অনেকটা বখাটে ছেলেদের উৎপাত থেকেও নিরাপদ বোধ করছে বলে মনে হচ্ছে। অভিভাবকদের বেলায়ও স্বস্তি বয়ে আনছে। স্কুল-কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের কিশোরী তরুণীরা বেশ স্বাচ্ছন্দ্য হেজাব ব্যবহার করছে।

এ বিষয়ে একজন বেসরকারি ওয়ার্ল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী উর্মি জানালো তার পরিবারের অভিভাবকদের পছন্দের কারণে হেজাব ব্যবহার করছে। প্রথম দিকে গরমের কারণে অস্বস্তি লাগলেও এখন অভ্যস্ত হয়ে গেছে বলে জানায়। স্কলার স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রী ফাতেমা মেহরিন কুইন একটু ব্যতিক্রম। সে তার পরিবারের বিধি নিষেধে নয় বরং নিজের অবস্থান থেকেই হেজাব ব্যবহার শুরু করেছে। স্কুলে একজন বন্ধুকে দেখে অন্যজন এভাবে ৩৫ জন ছাত্রীর মধ্যে ১৩ জনই স্কুল ড্রেসের উপরে হেজাব ব্যবহার করছে। বিয়ে বা যে কোন অনুষ্ঠানে শাড়ির সাথে রঙ মিলিয়ে স্কার্ফ ব্যবহার করলে অসাধারণ দেখা যায়। বসুন্ধরা সিটি মলের একটা বড় কর্নার শুধুমাত্র মহিলাদের বোরকা বা হেজাবের স্কার্ফ পাওয়া যায়।

তাছাড়া নিউমার্কেট, গাউছিয়া, গুলশান বা ধানমন্ডির সব মার্কেটেই পাওয়া যাচ্ছে। কাঁটাবনের মোড়েও বোরখা বিতান নামে একটা দোকানে বোরকা এবং হেজাবের প্রচুর কালেকশন আছে। স্কার্ফে ব্যবহারের জন্য গাউছিয়ার সামনে স্কার্ফের কিলিপ বা স্টোনের কাটা পাওয়া যাচ্ছে। সবশেষে এটা স্বীকার করতেই হয় পর্দা বা ইসলামের আদর্শে যে চলে তারে সম্মান সবখানে।

সবুজবাংলা২৪ডটকম/  ঢাকা / ০৫  সেপ্টেম্বর ২০১৪ /শুক্রবার/ ২৩:২০

মন্তব্য

Scroll To Top
Copy Protected by Chetans WP-Copyprotect.